ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসের সময়সূচী, ভাড়া, অনলাইন টিকিট 2022

এখন আমরা  আপনাদের সাথে ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসের বিষয়ে কিছু কথা বলব। আমরা এই তথ্যগুলো সংগ্রহ করে আপনাদের জন্য লিখেছি। আমরা চেষ্টা করি খুবই গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করার। আপনারা যারা আমাদের ওয়েবসাইটের নিয়মিত ভিজিটর রয়েছেন তারা আমাদের ওয়েবসাইট সম্পর্কে খুব ভালোভাবেই জানেন। আমরা শতভাগ সঠিক তথ্য দিয়ে আপনাদের উপকৃত করার চেষ্টা করি।

আমরা আজকের অনুচ্ছেদে আপনাদের জানাব ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা রুটে কোন কোন বাস চলাচল করছে এবং সেই বাসের সময়সূচী সম্পর্কে। আমরা বাসগুলোর অনলাইন টিকিট এবং ভাড়া সম্পর্কে আপনাদের একটি ধারণা দেব। আপনারা যখন এই তথ্যগুলো আপনাদের কাছে পাবেন তখন এই রোডে যাতায়াতের ক্ষেত্রে আপনাদের আরও সহজ মনে হবে।

ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাস

আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না ঠাকুরগাঁ থেকে ঢাকার দূরত্ব প্রায় অনেক কিলোমিটার হবে। লম্বা পথ বাসে যাতায়াত এর ক্ষেত্রে অনেক সময় সাপেক্ষ হয়। তবুও অনেক মানুষ রয়েছেন যারা বাস এর মাধ্যমে ঢাকা জেলা তে প্রবেশ করেন। এর জন্য বিভিন্ন মানুষের বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে।

কেউ তার ব্যবসায় কাজ পরিচালনার জন্য ঢাকা তে যেতে পারেন। কেউ চাকরির খোঁজে ঢাকা তে যেতে পারেন আবার জীবিকা নির্বাহের জন্য ঢাকা তে যেতে পারেন।অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে যারা পড়াশুনার কাজে এবং চাকরির পরীক্ষার জন্য ঢাকাতে বাসে যাতায়াত করেন। আরো অনেক কারণ রয়েছে যার কারণে একজন ব্যক্তি ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসে যাতায়াত করতে পারে।

ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসের সময়সূচী

আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসের সময়সূচী জানতে আগ্রহী রয়েছেন তারা এই অংশটুকু ভালোভাবে দেখতে পারেন। এই অংশে আমরা দেখাবো ঠাকুরগাঁও থেকে কোন কোন বাস কখন ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়ে এবং আরও দেখাব  বাসগুলো ঢাকা জেলাতে ঠিক কখন পৌঁছাচ্ছে।

সকালের বাসের সময়সূচী

  • আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করতে চান তাদের জন্য নাবিল পরিবহন একটি সকালের বাস রেখেছে। এই বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে সকাল 7:10 এ ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়বে এবং দুপুর 2 টা 55 মিনিটে তার গন্তব্য স্থানে পৌঁছবে। আপনারা চাইলে এই বাসটিতে যাত্রা করতে পারেন। এটি একটি নন এসি বাস সার্ভিস এবং স্লিপিং চেয়ার কোচ।
  • আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যেতে চান তাদের জন্য নাবিল পরিবহনের আরো একটি বাস সার্ভিস চালু রয়েছে। এই বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে ছাড়বে সকাল 8:30 মিনিটে এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে বিকেল 4 টা 10 মিনিটে। এটি একটি নন এসি বাস।

রাতের বাসের সময়সূচী

  • আপনাদের জন্য নাবিল পরিবহন লিমিটেড সন্ধ্যায় একটি বাস সার্ভিস চালু রেখেছে। আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও থেকে সন্ধ্যায় যাত্রায় ঢাকা যেতে ইচ্ছুক তারা এ বাসটিতে যেতে পারেন। এই বাসটি সন্ধ্যা 7:30 এ ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিবে এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে সকাল 6:30 এ এটি একটি নন এসি বাস।
  • এনা ট্রানস্ফার আপনাদের জন্য রাতের একটি বাস রেখেছে এই বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে ছাড়বে রাত 7:55  মিনিটে এবং তার গন্তব্য স্থানে ঢাকাতে পৌঁছাবে সকাল 6:30 মিনিটে। এ বাসটিতে আপনারা খুব আরামে যাত্রা করতে পারবেন কারণ এটি একটি এসি বাস।
  • আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যেতে ইচ্ছুক তাদের জন্য নাবিল পরিবহনের একটি বাস সার্ভিস রয়েছে। এই বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবে রাত 8:00 টায় এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে সকাল 7:00 টায়। এটি একটি নন এসি বাস।
  • নাবিল পরিবহনের আরো একটি বাস সার্ভিস রয়েছে। এই বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে ছাড়বে রাত 8:30 মিনিটে এবং তার গন্তব্য স্থানে পৌঁছবে সকাল 6:00 টায়।
  • আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যেতে চাচ্ছেন তাদের জন্য নাবিল পরিবহন একটি এসি বাস সার্ভিস চালু রেখেছে। এই এসি বাস ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবে রাত 9 টায় এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে ভোর 4:30 মিনিটে।
  • হানিফ এন্টারপ্রাইজ রাত 9 টা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে তাদের একটি এসি বাস চালু রেখেছে এই বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে রাত 9 টায় ছাড়বে এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে সকাল 6 টায়।
  • নাবিল পরিবহন ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাস সার্ভিস আরও একটি বাস হলো তাদের নন এসি বাস। এ বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে যাত্রা শুরু করবে রাত 9:30 মিনিটে এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে সকাল 7:00 টায়।
  • ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা সর্বশেষ বাসটি হল নাবিল পরিবহনের একটি বাস সার্ভিস। আপনারা চাইলে এই বাসটিতে খুব আরামদায়ক ভাবে আপনার যাত্রা সম্পূর্ণ করতে পারেন। এইটা একটি এসি বাস সার্ভিস। এ বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে তার যাত্রা শুরু করবে রাত 9 টা 30 মিনিটে এবং ঢাকাতে পৌঁছাবে সকাল 6:00 টায়।

ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসের ভাড়া

ঠাকুরগাঁও টু ঢাকা বাসের ভাড়া বলতে আমরা বাসের টিকিটের মূল্য কে বুঝাই চলুন নিচের অংশ আমরা এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানি।

ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা এই রুটে আমরা হানিফ এন্টারপ্রাইজ, এনা ট্রান্সপোর্ট এবং নাবিল পরিবহন এর সকল বাসের তথ্যগুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরেছি। আপনারা অবশ্যই তথ্যগুলো হতে আপনার পছন্দ অনুযায়ী বাসটি সিলেক্ট করবেন এবং বাসে যাতায়াত এর ক্ষেত্রে ভাড়া নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে একটি  সিটে টিকিট মূল্য নির্ধারণের মাধ্যমে বাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে তো চলুন জেনে নেই এসি বাস এবং নন এসি বাসের ভাড়া সম্পর্কে।

এসি বাসের ভাড়া

  • ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যাওয়ার জন্য এসি বাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে এনা ট্রানস্পর্ট সিট প্রতি 800 টাকা। হানিফ এন্টারপ্রাইজ এ প্রতি সিটের জন্য 1400 টাকা এবং নাবিল পরিবহন এ সিট প্রতি 1500 টা।

নন এসি বাসের ভাড়া

  • ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যাওয়ার জন্য নন এসি বাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে 600 টাকা। আপনারা যারা ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যাত্রা করতে চান এবং নন এসি বাসে যেতে চান তাদের জন্য সিট প্রতি 600 টাকা খরচ করতে হবে।

অনলাইনে বাসের টিকিট

আপনারা কি ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকা যেতে ইচ্ছুক। তাহলে আর দেরি না করে খুব সহজেই আপনার মোবাইল ফোনে অনলাইনে বাসের টিকিট কেটে ফেলুন। অনলাইনে বাসের টিকিট কাটার জন্য আপনাকে shohoz.com এ প্রবেশ করতে হবে।

খুব সহজে মাত্র তিনটি ধাপ অবলম্বন করে আপনি আপনার টিকিট কেটে নিতে পারেন। যদি না পারেন তাহলে আপনি আমাদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে এ তথ্যগুলো সংগ্রহ করতে পারেন। যে কেউ খুব সহজে আমাদের তথ্য গুলো দেখে shohoz.com এর মাধ্যমে টিকিট কেটে নিতে পারবেন।

ঠাকুরগাঁও জেলা সম্পর্কে

ঠাকুরগাঁও জেলা বাংলাদেশের উত্তরপশ্চিমাঞ্চলের রংপুর বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। ঠাকুরগাঁও জেলার উত্তরে পঞ্চগড় জেলা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, পূর্বে দিনাজপুর জেলা এবং পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ অবস্থিত।

ঠাকুরগাঁও জেলা পাঁচটি উপজেলায় বিভক্ত এগুলো হচ্ছে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা, পীরগঞ্জ উপজেলা, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা, রাণীশংকৈল উপজেলা, হরিপুর উপজেলা।

টাঙ্গন সুখ ও ফেনুয়া বিধৌত এ জনপদের একটি ঠাকুর পরিবারের উদ্যোগকে ব্রিটিশ শাসনামলে বর্তমান পৌরসভা এলাকার কাছাকাছি কোন স্থানে একটি থানা স্থাপিত হয়। এই পরিবারের নাম অনুসারে থানা টির নাম হয় ঠাকুরগাঁও থানা। ঠাকুর অর্থাৎ ব্রাহ্মণদের সংখ্যাধিক্যের কারণে স্থানটির নাম ঠাকুরগাঁও হয়েছে। 1793  সালে ঠাকুর গ্রাম অভিভক্ত দিনাজপুর জেলার থানা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

শিল্প প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ঠাকুরগাঁও চিনিকল অন্যতম। এছাড়া জেলায় বিসিক শিল্পনগরী আছে সেখানে কিছু কারখানা আছে। এরমধ্যে বিস্কুট ফ্যাক্টরি, সাবান ফ্যাক্টরি, প্লাস্টিক কারখানা, ফ্লাওয়ার মিল এবং জুটমিল উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও সালন্দর ইউনিয়নে কাজী ফার্মস এর ফিড মিল আছে। ঠাকুরগাঁও অঞ্চলের স্থানীয় জনগণ সাধারণত কোচ রাজবংশী ভাষায় কথা বলে। এ ভাষাটি মূলত রাজবংশী রংপুরী বা কামতাপুরী নামে পরিচিত যা ইন্দোআর্য পরিবারভুক্ত একটি ভাষা। শ্রুতিমধুর এ ভাষা বাংলাদেশের দিনাজপুর রংপুর অঞ্চলের মানুষ ছাড়াও ভারতের কোচবিহারের মানুষের মুখে ও ব্যাপক প্রচলিত।

ঠাকুরগাঁওয়ে অনেকগুলো নদী রয়েছে সেগুলো হচ্ছে টাঙ্গন নদী, ছোট ঢেপানদী, কুলিক নদী, পুনর্ভবা নদী, তালমা নদী, পাথরাজ নদী, নাগর নদী ও নোনা নদী। এছাড়াও আছে সুখ নদী, ছোট সেনুয়া নদী, আমন দামন নদী,ও লাচ্ছি নদী

Digonto Ahmed

I am Digonto Ahmed. I read in Nasirabad University College. I like to travel. So I am sharing various information about Transport system in Bangladesh

Leave a Reply

Your email address will not be published.