লক্ষ্মীপুর টু ঢাকা বাসের সময়সূচী, ভাড়া, অনলাইন টিকিট 2022

চলে এলাম আবার আজকে আপনাদের সঙ্গে কিছু তথ্য শেয়ার করতে। আজকে আমরা যে তথ্য নিয়ে আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করব সেটি হল লক্ষীপুর টু ঢাকা বাসের সময়সূচী সম্পর্কে। লক্ষ্মীপুর জেলা চট্টগ্রাম জেলার একটি জেলা। এই জেলা থেকে ঢাকা জেলাতে প্রতিনিয়ত ঐ বাসে মানুষ যাতায়াত করে। তাদের জন্য এই তথ্যগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এ পোস্টের মাধ্যমে আপনারা জানবেন লক্ষীপুর টু ঢাকা এই রুটে কোন কোম্পানির বাস চলাচল করে। এই বাসগুলো সময়সূচী সম্পর্কে আপনারা একটি ধারণা পাবেন। যেখান থেকে আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী বাসটি নির্বাচন করতে পারেন। আমরা বাসগুলোর ভাড়া এবং অনলাইন টিকিট সম্পর্কেও আপনাদের একটি সুন্দর ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করব।

লক্ষ্মীপুর জেলা সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না যে লক্ষ্মীপুর জেলা থেকে ঢাকার দূরত্ব প্রায় 135 কিলোমিটার। খুব বেশি দূরত্ব না হলেও অনেকটা দীর্ঘ পথ। এই পথে বহু মানুষ ঢাকার উদ্দেশ্যে যাতায়াত করে। প্রত্যেকটি মানুষের আলাদা আলাদা কারণ রয়েছে। তবে বেশিরভাগ মানুষই বাসে যাতায়াত করতে পছন্দ করে।

লক্ষ্মীপুর জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলের একটি প্রচলিত এবং পরিচিত জেলা। এই জেলা চট্টগ্রাম বিভাগের একটি জেলা শহর। এটি লক্ষ্মীপুর জেলা ও লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা প্রশাসনিক সদর দপ্তর।1976 সালের 1 লা সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীপুর পৌরসভা গঠিত হলে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরে পরিণত হয়। 11979 সালে 19 জুলাই লক্ষ্মীপুর মহাকুমা গঠিত হলে শহরটি মহাকুমার শহর এবং এই এলাকার নিয়ে গঠিত হয় 1984 সালে আঠাশে ফেব্রুয়ারি লক্ষ্মীপুর জেলা।

এই জেলাতে বেশিরভাগ মানুষই কৃষির উপর নির্ভরশীল। বেশিরভাগ মানুষই জীবিকা নির্বাহের জন্য কৃষি কাজ করে থাকে। কৃষি কাজের পাশাপাশি এই জেলাতে সকল ধরনের ফলমূল চাষাবাদ হয়। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি ভেজারাতে চাষাবাদ হয়।

বহু মানুষ তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য ঢাকাতে এসে বসবাস করে। শিক্ষার্থীরা শিক্ষার কাজে ঢাকা তে এসে থাকে। এছাড়াও নানান কাজে লক্ষীপুর থেকে ঢাকাতে মানুষ যাতায়াত করে। যারা এই রুটে বাসে যাতায়াত করে তাদের জন্য আজকের আমাদের এই অনুচ্ছেদ। আপনি কোন বাসে কখন কিভাবে লক্ষীপুর থেকে ঢাকাতে এবং ঢাকা থেকে লক্ষ্য করে যাতায়াত করতে পারবেন সেই সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য এখন আমরা আপনাদের দেব।

লক্ষীপুর টু ঢাকা বাসের সময়সূচী

আমরা সবসময় চেষ্টা করি শতভাগ সঠিক তথ্য আপনাদের সামনে তুলে ধরার। যেহেতু লক্ষীপুর থেকে ঢাকার দূরত্ব খুব একটা বেশি নয় তাই বড় বড় বাস কোম্পানিগুলো সরাসরি লক্ষীপুর থেকে তাদের বাস সার্ভিস চালু রাখেনি। তবুও ঢাকা এক্সপ্রেস কোম্পানি লক্ষীপুর থেকে রেগুলার তাদের বাসগুলো ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়ছে।

  • ঢাকা এক্সপ্রেস এই বাস কম্পানি লক্ষীপুর থেকে বেশ কয়েকটি বাস ঢাকার উদ্দেশ্যে নিয়মিত ছাড়ে। এই বাসগুলো দিনের বিভিন্ন সময় ঢাকার উদ্দেশ্যে লক্ষীপুর থেকে যাত্রা শুরু করে। এখন আমি প্রথম যে বাসটি কথা বলব সেই বাসটি একটি নন এসি বাস। বাসটি বিকেল 4 টা 30 মিনিটে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে রায়পুর কাউন্টার থেকে। এই বাসটি যাত্রা শেষ করে ঢাকাতে কচুক্ষেত কাউন্টারে। বাসটির কোচ নাম্বার হল 125 রায়পুর টু ঢাকা। বাসটি যাত্রা শেষ করে রাত 10 টা 40 মিনিটে।
  • আরো একটি নন এসি বাস রয়েছে যে বাসটি রাত 8:30 মিনিটে রায়পুর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। এই বাসটির কোচ নাম্বার হল 129 রায়পুর টু ঢাকা। বাসটি ঢাকা টঙ্গী কাউন্টারে এসে তার যাত্রা শেষ করে। লাস্টে রাত 2 টা 30 মিনিটে তারা যাত্রা শেষ করে।
  • ঢাকা এক্সপ্রেস সকাল 5:30 এ তাদের একটি নন এসি বাস ঢাকা টঙ্গী কাউন্টার থেকে লক্ষ্মীপুর রায়পুর কাউন্টারে উদ্দেশ্যে ছাড়ে। এই বাসটি কোচ নম্বর হলো 701 ঢাকা টু রায়পুর। বাসটি দুপুর 1 টা 40 মিনিটে লক্ষ্মীপুর রায়পুর এসে পৌঁছায়।
  • ঢাকা এক্সপ্রেস সকালবেলাতে আরো একটি বাস চালু রেখেছে ঢাকা টু লক্ষ্মীপুর এই রুটে। এটি একটি নন এসি বাস এবং এ বাসটি ঢাকা টঙ্গী কাউন্টার থেকে যাত্রা শুরু করবে সকাল 6:30 মিনিটে। বাসটির কোচ নাম্বার 1001 এসি টঙ্গী টু রায়পুর। বাসটি দুপুর 2 টা 40 মিনিটে লক্ষীপুর এসে পৌঁছাবে।
  • ঢাকা টঙ্গী কাউন্টার থেকে লক্ষীপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে ঢাকা এক্সপ্রেস এর একটি নন এসি বাস। এই বাসটি সকাল 7 টা 45 মিনিটে ছেড়ে আসবে যার কোচ নম্বর হলো 705 ঢাকা টু রায়পুর। এই বাসটি লক্ষ্মীপুর এসে পৌঁছবে বিকাল 3:55 মিনিটে।
  • সকাল 10:30 এ ঢাকা এক্সপ্রেস এর আরো একটি এসি বাস টঙ্গী কাউন্টার থেকে রায়পুর কাউন্টার এর উদ্দেশ্যে রওনা শুরু করবে। বাসটি এই কাউন্টার থেকে রওনা শুরু করে লক্ষ্মীপুরে পৌঁছাবে সন্ধ্যা 6:00 টা 40 মিনিটে। বাসটির কোচ নাম্বার হচ্ছে 1002 এসি টঙ্গী টু রায়পুর।
  • ঢাকা এক্সপ্রেস দুপুর বেলাতে টঙ্গী কাউন্টার থেকে লক্ষীপুরের উদ্দেশ্যে তাদের একটি বাস ছাড়ে। এটি একটি নন এসি বাস যার কোচ নম্বর 716 ঢাকা টু রায়পুর। এই বাসটি দুপুর 1 টা 30 মিনিটে লক্ষীপুরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে এবং রাত 9:40 লক্ষ্মীপুরে পৌঁছায়।
  • যারা রাতে যাতায়াত করতে পছন্দ করেন তাদের জন্য ঢাকা টু লক্ষ্মীপুর এই রুটে ঢাকা এক্সপ্রেস চালু রেখেছে একটি নন এসি বাস। বাসটি সন্ধ্যা 7 টা 30 মিনিটে টঙ্গী সেন্টার থেকে যাত্রা শুরু করবে এবং রাত 3:40 এ লক্ষ্মীপুর রায়পুর এসে পৌঁছাবে। কোচ নাম্বার 728 ঢাকা টু রায়পুর।
  • রাতের আরো একটি বাস যার কোচ নম্বর হলো 733 ঢাকা টু রায়পুর। এই বাসটি রাত আটটা 30 মিনিটে টঙ্গী কাউন্টার থেকে যাত্রা শুরু করবে এবং ভোর 4 টা 40 মিনিটে লক্ষ্মীপুরে গিয়ে পৌঁছবে।
  • ঢাকা এক্সপ্রেস এর অনেক কয়টি এসি বাস ঢাকা টু লক্ষ্মীপুর এই রুটে চলাচল করে। রাতে চলাচলের জন্য যে এসি বাসটি রয়েছে সেই এসি বাসের কোচ নম্বর হলো 1005 এসি টঙ্গী টু রায়পুর। এই বাসটি টঙ্গী কাউন্টার থেকে লক্ষ্মীপুর রায়পুর এর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবে রাত 9:30 মিনিটে এবং ভোর 5:40 মিনিটে তার গন্তব্যস্থলে পৌঁছাবে।
  • দিনের সর্বশেষ বাস এই রুটে যার কোচ নাম্বার হলো 733 ঢাকা টু রায়পুর। এই বাস টঙ্গী থেকে ছেড়ে যাবে রাত 10 টা তে। বাসটি একটি নন এসি বাস এবং ভোর ছয়টা 10 মিনিটে লক্ষ্মীপুর রায়পুর এসে তার যাত্রা শেষ করবে।

লক্ষীপুর টু ঢাকা বাসের ভাড়া

আলোচনার এই পর্যায়ে আমরা আপনাদের জানাব লক্ষীপুর টু ঢাকা এই রুটের বাসের চলাচলের ক্ষেত্রে আপনাকে কত টাকা ভাড়া দিতে হবে।

নন এসি বাসের ভাড়া

  • আমরা এই পোস্টে ঢাকা এক্সপ্রেস বাসের সময়সূচি নিয়ে আলোচনা করেছি। লক্ষীপুর থেকে ঢাকা এই রুটে যেসকল নন এসি বাস চালু রয়েছে প্রত্যেকটি বাসের টিকিট মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে 400 টাকা। এক সিটের ভাড়া হচ্ছে 400 টাকা।

এসি বাসের ভাড়া

  • যারা লক্ষীপুর টু ঢাকা রুটে চলাচল করেন তাদের জন্য বাস কর্তৃপক্ষ টিকিট মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে 500 টাকা। 500 টাকা প্রতি সিটের জন্য আপনাকে খরচ করতে হবে।

অনলাইনে বাসের টিকিট সংগ্রহ

আপনি খুব সহজেই এবং খুব তাড়াতাড়ি অনলাইনে লক্ষীপুর টু ঢাকা এই রুটের বাসের টিকিট কাটতে পারেন। এর জন্য আপনার মোবাইল থেকে যে কোন একটি ব্রাউজার ওপেন করে ইন্টারনেট কানেকশন অন করে নিন। তারপর সেখান থেকে সার্চ দিন ঢাকা এক্সপ্রেস লিখে। ঢাকা এক্সপ্রেস বাস কোম্পানির ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে আপনি আপনার গন্তব্য স্থল এবং যাত্রা শুরু হল নির্বাচন করুন এবং তারিক নির্বাচন করুন।

এরপরে আপনি সার্চ দিয়ে বাস নির্বাচন করুন। এরপরে আপনাকে সীট সিলেকশন করতে হবে। এ পর্যায়ে আপনাকে পেমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। আপনি পেমেন্ট এর জন্য ভিসা কার্ড, মাস্টার কার্ড, ডাচ বাংলা ব্যাংক, বিকাশ, রকেট, শিওর ক্যাশ, সিটি ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক ব্যবহার করতে পারেন। পেমেনট সম্পন্ন হলে আপনার টিকিট কাটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

Digonto Ahmed

I am Digonto Ahmed. I read in Nasirabad University College. I like to travel. So I am sharing various information about Transport system in Bangladesh

Leave a Reply

Your email address will not be published.