ঢাকা টু রংপুর ট্রেনের সময়সূচী, টিকিট ও ভাড়ার তালিকা

ঢাকা থেকে রংপুর আপনি ট্রেনে যেতে চাইলে যেতে পারবে। ঢাকা থেকে রংপুর প্রচুর পরিমাণে যাত্রী যাতায়াত করে। প্রধান কারণ হল ঢাকা থেকে রংপুর প্রতিদিন যাতায়াত করে যে সকল যাত্রীরা তারা ট্রেনে যেতে পছন্দ করে। আপনাদের বলে রাখি বাংলাদেশের রাস্তাঘাটের যে অবস্থা আপনি যদি বাসে যাতায়াত করেন তাহলে আপনার যাত্রাটা যতটা সুরক্ষিত হবে ট্রেনে যাতায়াত করলে তার থেকে 100 গুণ বেশি সুরক্ষিত থাকবে।

আমার মতন সকলে চিন্তা করে কিনা সেটা আমার জানা নেই তবে আমি যে এই চিন্তাটা করছি সেটা সঙ্গে যদি আপনারা একমত থাকেন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানাবেন। তার পরেও ট্রেনের রয়েছে বেশ ঝুকি, ঝুকি গুলো আস্তে আস্তে সেরে উঠছে বাংলাদেশ রেল কর্তৃপক্ষ। তার মধ্যে যেমন পুরাতন ট্রেনের বগি অথবা পুরাতন ইঞ্জিন এবং অচল ট্রেনের লাইন এসব বিষয়গুলো পরিবর্তন আনছে আস্তে আস্তে।

আজকে আমরা আলোচনা করছি ঢাকা থেকে রংপুর এর ট্রেন যাতায়াতের বিভিন্ন তথ্য নিয়ে। বাংলাদেশের দ্বিতীয় রাজধানী রংপুর অর্থাৎ রংপুরের বাসিন্দারা দাবি করে বাংলাদেশের যদি দ্বিতীয় কোন রাজধানী হয় তাহলে সেটা হবে রংপুর। এছাড়াও রংপুরের মানুষের জীবনমান উন্নত যা কারণে ঢাকার সঙ্গে তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেক ভালো যদিও তাদের দূরত্ব অনেক বেশি।

ঢাকা টু রংপুর ট্রেন

ঢাকা থেকে রংপুরে ট্রেন সম্পর্কে বেশি কিছু বলার নেই। তবে নতুনদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা রয়েছে। আপনারা যারা নতুন রয়েছেন তারা অবশ্যই আন্তঃনগর ট্রেনগুলোতে যাতায়াত করবেন কারণ হল ঢাকা থেকে রংপুরের দূরত্ব অনেক বেশি। আপনারা যত বেশি দ্রুত জানে যাতায়াত করবেন তত আপনাদের সময় সাশ্রয় হবে এবং তত আপনারা যাত্রা টাকে উপভোগ করতে পারবেন।

কোনো কারণবশত যদি আপনারা লোকাল মেইল ট্রেনে ঢাকা থেকে রংপুর যাওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে ফেলেন তাহলে আমি বলব সে সিদ্ধান্ত ভুল। যাইহোক এই ট্রেনগুলোতে বেশ সুযোগ-সুবিধা রয়েছে যার কারণে যাত্রীরা বর্তমানে এই ট্রেনগুলোতে যাতায়াত করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে এবং নিয়মিত যাতায়াত করছে। আমরা আজকে এ বিষয়ে বিস্তারিত আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করব এবং আশা করব আপনারা ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে আমাদের সম্পূর্ণ আর্টিকেল পড়বেন।

ঢাকা টু রংপুর ট্রেনের সময়সূচী আন্তঃনগর

ঢাকা থেকে রংপুরের দূরত্ব প্রায় 307 কিলোমিটার। 307 কিলোমিটারের এই রেলপথে যদি আরামের সাথে যাত্রা নয় করতে পারেন তাহলে খুবই যাত্রীদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়। তবে আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেন গুলোতে আপনি যদি যাত্রা করেন তাহলে এই ভোগান্তির শিকার হতে বেঁচে যাবেন। আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেন গুলোতে অনেক সুযোগ সুবিধা থাকায় এই ট্রেনগুলোতে যাত্রীদের কোন অসুবিধায় পড়তে হয় না। আমরা এখনই আন্তঃনগর ট্রেন গুলোর নাম, ছুটির দিন এবং ছাড়ার সময় পৌছানোর সময় গুলো আপনাদেরকে সহজ ভাবে বোঝানোর চেষ্টা করব।

রংপুর এক্সপ্রেস 771

রংপুর এক্সপ্রেস একটা আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেন। রংপুর এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটির নিয়মিত ঢাকা টু রংপুর এ রুটে চলাচল করে। রংপুর এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেন টি সপ্তাহে ছয়দিন চলাচল করে এবং 1 দিন বন্ধ থাকে সেই বন্ধের দিন হলো সোমবার। অর্থাৎ সোমবার ব্যতীত অন্য যেকোনো দিন আপনারা চাইলে রংপুর এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটির আপনার যাত্রা সম্পূর্ণ করতে পারবেন। ট্রেনটি ঢাকা রেলওয়ে স্টেশন থেকে ছেড়ে আসা 9:10 এবং রংপুর রেলওয়ে স্টেশনে এসে পৌঁছায় 7 টা 5 মিনিটে।

কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস 797

কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটির নিয়মিত ঢাকা টু রংপুর এ রুটে চলাচল করে। কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটির সপ্তাহে ছয়দিন চলাচলকারি এবং বুধবার বন্ধ থাকে। ট্রেনটি ঢাকা রেলওয়ে স্টেশন হতে সেরা 7 টা 45 মিনিটে এবং রংপুর রেলওয়ে স্টেশনে এসে পৌঁছায় 4:55।

ঢাকা টু রংপুর ট্রেনের ভাড়ার তালিকা

ট্রেনের ভাড়ার তালিকা গুলো সাধারণত সরকারিভাবে নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। ট্রেনের ভাড়া তেমন ব্যয়বহুল নয় এটি নিয়মিত বাসের তুলনায় অনেক কম হওয়াতে ট্রেনে মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণীর জন্য সেরা পছন্দ। এখানে টিকিটের দাম আসন বিভাগ অনুযায়ী উল্লেখ করা হলো।

শোভন চেয়ার আসনের টিকেট মূল্য 505 টাকা। স্নিঘ্ধা আসনের টিকেট মূল্য 966 টাকা এবং এসি আসনের টিকিট মূল্য 1162 টাকা।

Digonto Ahmed

I am Digonto Ahmed. I read in Nasirabad University College. I like to travel. So I am sharing various information about Transport system in Bangladesh

Leave a Reply

Your email address will not be published.